বই রিভিউ

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় মানবিক রাষ্ট্র বই রিভিউ|রকিবুল হাসান|

  • বইয়ের নাম: কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় মানবিক রাষ্ট্র 
  • লেখক: রকিবুল হাসান 
  • ক্যাটাগরি: কম্পিউটার প্রোগ্রামিং

প্রিয় পাঠকগণ প্রথমেই লেখক সম্পর্কে একটু জেনে নেওয়া যাক।ইনফরমেশন এবং কমিউনিকেশন টেকনোলজি কম্পিউটারেরনানা বিষয় নিয়ে বিশেষ জ্ঞানসম্পন্ন একজন লেখকের নাম বললেই উঠে আসবে রকিবুল হাসানের কথা। বর্তমান যুগ সম্পর্কেসকলের জানা এটি হলো যোগাযোগ বিজ্ঞানের স্বর্ণযুগ। এখন পুরো বিশ্ব বিভিন্ন তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির উপর নির্ভরশীল।

আরো পড়ুন: বেলা ফুরাবার আগে বই রিভিউ

পুরো বিশ্ব চলছে বিভিন্ন তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির উপর ভর করে এবং কম্পিউটার নিয়ন্ত্রণ করছে বিশ্বের প্রায় সবকিছুই।বর্তমানের এই পৃথিবীতে যেকোনো মানুষের জীবনে কম্পিউটার ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই। আর তাই এখন সকল শিক্ষিতমানুষেরই কম্পিউটার এবং অন্যান্য তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ে থাকা প্রয়োজন।

আর এইসব জ্ঞান সাধারণ মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতেই রচিত হয়েছে রকিবুল হাসান এর বই সমূহ।

১৯৭০ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেছেন রকিবুল হাসান।

শিক্ষাজীবন পার করেছেন ক্যাডেট কলেজে৷

ছোটবেলা থেকেই রেডিও কমিউনিকেশন নিয়ে অগাধ ভালোবাসা রকিবুল হাসানের। ফিউজ উড়ানো বাসায় আগুন লাগিয়েদেয়া ছিল তাঁর নিয়মিত কাজ। তবে ইলেকট্রনিক কমিনিউকেশনের প্রতি ভালোবাসার কারণে একসময় তিনি যোগ দেনবাংলাদেশ সেনাবাহিনী এর সিগন্যাল কোরে।

তিনি সবসময় নতুন নতুন বিষয় শিখতে ভালোবাসেন।

এরই ধারাবাহিকতায় তিনি সরকারিভাবে অংশ নিয়েছেন সত্তরটিরও অধিক ট্রেনিংয়ে, যার মধ্যে অন্যতম ছিল  আমেরিকানসেনাবাহিনীর সিগন্যাল স্কুলের কোর্স এবং ম্যাকমাস্টার ইউনিভার্সিটিরলার্নিং হাউ টু লার্নকো।

তাঁর রয়েছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশনে কাজ করার অভিজ্ঞতা। আজকে আমরা তার লেখা অন্যতমএক সেরা বইকৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় মানবিক রাষ্ট্রনিয়ে আলোচনা করব।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় মানবিক রাষ্ট্রবইটিতে লেখক রকিবুল হাসান ডেটার ১০ টি ব্যাবহার সম্পর্কে লিখেছেন। চলুন তাহলে বইটিরকিছু অংশ নিয়ে আলোচনা হয়ে যাক।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং ডেটার ১০ টি ব্যাবহার:

The best time to plant a tree was 20 years ago, the second best time is now.

                                               Chinese proverb

বর্তমানের এই সময়ে আমরা প্রতিটি মুহূর্তেই ডেটার ব্যাবহার করে থাকি। যার ফল হিসেবে হাজার বছরের মানবসভ্যতা এগিয়েছেঅনেক। উৎকর্ষতা, দক্ষতা হচ্ছে বর্তমান সময়ের মুল মন্ত্র। আর সেটার প্রয়োজনেই যোগ দিয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। আগে যেজিনিস করতে লাগতো

কয়েক যুগ। সেটা এখন মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে করা সম্ভব হচ্ছে।

প্রযুক্তিগত ন্যায়বিচার,

বর্তমান সময়ে প্রযুক্তির ন্যায়বিচার ধারণাটি চলছে বিশ্বব্যাপী। উন্নত দেশগুলোর সব উন্নতির পিছনে রয়েছে জাতীয় পর্যায়েরবুদ্ধিমত্তা যেগুলোর সব কিছুই ইন্টার কানেক্টেড। ধরনের প্লাটফর্ম আমাদের দেশেও তৈরি করা আছে।

আরো পড়ুন: বেলা ফুরাবার আগে বই রিভিউ

যে ১০ টি জিনিস বদলে দিতে পারে বাংলাদেশকে:

1.বাংলাদেশে ডেটা এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যাবহার

2.আগাম ধারণার প্রশাসন;

3.বাংলাদেশ আইডেন্টিফিকেশন;

4.প্রতিটি কাজের অগ্রগতি দেখার জায়গা;

5.সরকারি সার্ভিসেগুলোকে সহজীকরণ;

6.সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর সুবিদা ভন্টন;

7.ঋণাত্মক আয়কর বা সর্বজনীন আয়ের নূন্যতম ধারণা

8.বুদ্ধিমান আয়কর পদ্দতির ভবিষ্যৎ;

9.দেশীয় আইন নীতিমালা/বিধি তৈরিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যাবহার;

10.সরকারি ওপেন ডেটা শেয়ারিং প্লাটফর্ম;

তাছাড়াও আর কি কি ক্ষেত্রে  ডেটার ব্যাবহার হয়ে থাকে এবং এর ব্যাবহার সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে কৃত্রিমবুদ্ধিমত্তায় মানবিক রাষ্ট্রএই বইটিতে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button