বাংলা রচনা সমগ্র

খেলাধুলার প্রয়োজনীয়তা রচনা

ভূমিকা :

কর্মই মানবজীবনের বৈশিষ্ট্য কর্মের উপরই মানবজীবনের সাফল্য নির্ভরশীল কাজের পাশাপাশি কিছু বিনোদনমূলক ব্যবস্থারপ্রয়োজন থেকে এসেছে খেলাধুলার চর্চা খেলাধুলা হলো শারীরিক ব্যায়াম বা পরিশ্রমের অঙ্গ খেলাধুলা দেহ আর মনেরবিকাশের জন্য সহায়তা করে খেলাধুলার এই উপযোগিতা মানবজীবনে প্রতিফলিত হয়েছে বলেই যুগ যুগ ধরে খেলাধুলার চর্চাহয়েছে এবং তার বিকাশ ঘটেছে বিচিত্রভাবে কাজের মধ্যে জীবনকে সীমাবদ্ধ করে রাখাই জীবনের বৈশিষ্ট্য নয় , বরং আনন্দ উপভোগের মাধ্যমে কাজকে গতিশীল করা প্রয়োজন।

খেলাধুলা সে প্রয়োজন সাধন করে তাই প্রতিটি ব্যক্তির জীবনে কর্মের পাশাপাশি শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য খেলাধুলারপ্রয়োজনীয়তা অপরিসীম

খেলাধুলার প্রকারভেদ :

মানুষের রুচি , শক্তি , সামর্থ্য , সময় , উপকরণ ইত্যাদি দিক বিবেচনা করে সারা দুনিয়া অসংখ্য খেলাধুলার উদ্ভব ঘটেছে বিশেষ দেশ বা বিশেষ অঞ্চলের যেমন খেলাধুলা আছে , তেমনি আন্তর্জাতিকভাবেও খেলাধুলার উন্মেষ ঘটেছে খেলাধুলারপরিসর ঘটেছে সংকীর্ণ গৃহকোণ থেকে বিশ্ব অলিম্পিকের মাঠ পর্যন্ত কোনো কোনো খেলাধুলা দেশের সীমানায় আবদ্ধ থাকেআবার কোনো কোনো খেলাধুলা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে অলিম্পিক , বিশ্বকাপ ক্রিকেট , বিশ্বকাপ ফুটবল , এশিয়ান কাপ , ইউরোপিয়ান কাপ প্রভৃতি ক্রীড়া প্রতিযোগিতার জনপ্রিয়তা এখন সারা দুনিয়া জুড়ে তুঙ্গে তাছাড়া টেবিলটেনিস , ব্যাডমিন্টন , হকি ইত্যাদি খেলাধুলা বর্তমানে আন্তর্জাতিকভাবে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে বিশ্বের সকল প্রকার খেলাধুলাকেপ্রধানত দুভাগে ভাগ করা যায় যথা , ঘরোয়া . বহির্বিভাগীয় ঘরোয়া খেলাধুলার মধ্যে রয়েছেতাস , দাবা , পাশা , ক্যারাম , লুডু , ব্যাডমিন্টন , টেবিল টেনিস ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।অপরপক্ষে , বহির্বিভাগীয় খেলাধুলার মধ্যে রয়েছেহাডুডু , ফুটবল , ক্রিকেট , ভবিবল ; সাঁতার , সাইকেল চালনা , হকি , বেস বল , দৌড় ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য

খেলাধুলার প্রয়োজনীয়তা :

স্বাস্থ্যই সম্পদ।শরীর সুস্থ সবল রাখার জন্য আমাদের জীবনে খেলাধুলা প্রয়োজন কারণ দেহকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলারজন্য খেলাধুলা বিশেষ সহায়ক সুস্থ দেহে সুস্থ মন বাস করে দেহকে সুস্থ , কর্মক্ষম প্রাণ প্রাচুর্যে পূর্ণ করার জন্য খেলাধুলাঅপরিহার্য শরীর সুস্থ থাকলে মানুষের কাজেকর্মে উৎসাহ উদ্দীপনা থাকে তাই প্রাচীনকাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্তকাজের সময় কাজ , খেলার সময় খেলা সমান তালে চলে এসেছে খেলাধুলা শুধু দেহের স্বাস্থ্যকেই ভালো রাখে না , মনেরস্বাস্থ্যকেও রাখে সুস্থ খেলাধুলা চিত্তকে করে প্রফুল্ল এবং মনকে দেয় মুক্তির আনন্দ খেলাধুলায় আছে নির্মল আনন্দ মানবজীবনে আনন্দ উপভোগের অনাবিল উৎস হিসেবে খেলাধুলা যুগ যুগ ধরে জনপ্রিয়তা অর্জন করে আছে জীবনেরগুরুভার কাজের মাধ্যমে প্রকাশ করলেও অনবরত কাজ করা মানুষের স্ববাব নয় কাজের ফাঁকে ফাঁকে বিনোদনের সুযোগথাকতে হবে খেলাধুলায় আছে সে সুযোগ স্বাস্থ্য আনন্দের জন্য খেলাধুলার যে অবদান তা মানবজীবনের সার্থক বিকাশেরক্ষেত্রে কাজ করে জীবন গঠনের জন্য খেলাধুলার বিশেষ প্রয়োজন রয়েছে

খেলাধুলার প্রভাব :

উন্নত মনমানসিকতা সম্পন্ন মানুষ তৈরির জন্য খেলাধুলার প্রভাব বিদ্যমান আশাহীন , আনন্দহীন কর্মক্লান্ত মানুষেরপরিচয় পাওয়া যায় খেলাধুলাবিহীন জীবনে বলিষ্ঠ দেহ , আনন্দউচ্ছল মন , গৌরবদীপ্ত প্রাণচাঞ্চল্য এসব খেলাধুলার সঙ্গেসম্পৃক্ত খেলাধুলার সাথে জড়িত থাকলেই তারুণ্যদীপ্ত জীবন লাভ করা সম্ভব নিয়মশৃঙ্খলা , উদারতা , সহযোগিতা , সহমর্মিতা ইত্যাদি মহৎ গুণের বিকাশ ঘটে খেলাধুলার মাধ্যমে খেলাধুলা জীবনে আনে ধৈর্যশীলতা , মনে আনে আনন্দ খেলা থেকে আসে সাহস , আসে কর্মক্ষমতা বাড়ে উপস্থিত বুদ্ধি খেলার প্রতিযোগিতা থেকে জীবনের যোগ্যতা প্রদর্শনেরশিক্ষা লাভ করা সম্ভব হয় ব্যক্তি জাতীয় জীবনে খেলাধুলা ব্যক্তিগত জাতীয় জীবনে কল্যাণের জন্য খেলাধুলার বিশেষপ্রয়োজনীয়তা রয়েছে খেলাধুলার উপযোগিতা প্রয়োজনীয়তার কথা অনুভব করে প্রত্যেক দেশেই খেলাধুলার চর্চা করারব্যবস্থা করা হয়েছে উন্নত দেশসমূহের জীবনযাত্রার মান শরীর গঠনে খেলাধুলায় রয়েছে গভীর প্রভাব সেখানে খেলাধুলাঅকাল বার্ধক্যের হাত থেকে রক্ষা করে জাতিকে যৌবনাবেগে চঞ্চল করে তুলেছে অপরদিকে আমাদের জীবনে খেলাধুলারঅভাব আমাদের করেছে স্থবির , বার্ধক্যের জীবনাবরণে স্তিমিত এছাড়া বর্তমানে খেলাধুলা বিশ্বমৈত্রী প্রতিষ্ঠাতেও রাখছে বিশেষঅবদান অঞ্চলে অঞ্চলে , জাতিতে জাতিতে , রাষ্ট্রে রাষ্ট্রে সখ্যতা সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠার এক বিশেষ ভূমিকা পালন করছেআজকের খেলাধুলা

ছাত্রজীবনে খেলাধুলা :

ছাত্রজীবনে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার চর্চা রাখা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কারণ সারাদিন পড়ার টেবিলে বসে থাকলেএকঘেয়েমি এসে যায় ফলে লেখাপড়ার উৎসাহ থাকে না তাই মাঝে মাঝে নিয়মিত পরিমিত খেলাধুলার চর্চা রাখলেশরীরকে সুস্থ মনকে প্রফুল্ল রাখা যায় এবং সাথে সাথে লেখাপড়ায়ও নতুন উদ্যম পাওয়া যায়।তবে মাত্রাতিরিক্ত খেলাধুলাছাত্রজীবনে অনেক ক্ষতি সাধন করে থাকে তাই ছাত্রজীবনে অধিক সময় খেলাধুলার পিছনে ব্যয় করা উচিত নয়

উপসংহার:

খেলাধুলা কর্মচাঞ্চল্যের প্রতীক ব্যক্তি জাতীয় জীবনে এবং আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে খেলাধুলার গুরুত্ব সীমাহীন কথায় আছেএকশ জন রাষ্ট্রদূতের চেয়ে একজন ভালো খেলোয়াড় একটি দেশ জাতির জন্য অধিক সুনাম পরিচয় বহন করে তরুণদেরশরীর মনের সুস্থতা স্বতঃস্ফূর্ততা বজায় রাখার জন্য খেলাধুলার প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য বর্তমানে নারী সমাজের জন্যওখেলাধুলার প্রয়োজন।খেলাধুলার গুরুত্ব বিবেচনা করে এর সযত্ন অনুশীলণ এবং প্রয়োজনীয় সুযোগসুবিধা সরকারকে বৃদ্ধিকরতে হবে

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button