টিপস & ট্রিকস

গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার উপায় এবং জনপ্রিয় আয়ের এর উৎসগুলো

গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার উপায় এবং জনপ্রিয় আয়ের এর উৎস – (Ways to learn graphic design and popular sources of income)

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আলোচনা করবো খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা টপিক নিয়ে। যেটা দিয়ে আপনি খুব সহজেই অনলাইনথেকে আয় করতে পারবেন। এমনই একটি আয়ের   উৎস হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইন। আপনি যদি নতুন হয়ে থাকেন তাহলে এইপোষ্ট টি আপনার জন্য। এই পোস্টটি পড়ার মাধ্যমে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইনের A to z ধারণা নিতে পারবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি?

গ্রাফিক ডিজাইনের কোন একক অর্থ নেই। গ্রাফিক ডিজাইন প্রিন্ট এবং ওয়েব ডিজাইন থেকে শুরু করে অ্যানিমেশন এবংমোশন গ্রাফিক্স পর্যন্ত অনেক কিছুই হতে পারে। এক কথায় যদি সহজ ভাষায়  গ্রাফিক্স ডিজাইনের সংজ্ঞা বলা হয় তাহলে তা হবেকোনো বিজ্ঞাপন, ব্যানার, টি শার্ট ডিজাইন, ফার্নিচার ডিজাইন, ফ্যাশন ডিজাইন, এবং প্রোডাক্ট ডিজাইন এসব কাজগুলোকম্পিউটারের মাধ্যমে নিখুঁতভাবে creative idea দিয়ে নিত্যনতুন ডিজাইন করার নামই হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইন।

আপনি চাইলে দুইভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারেন

টাকা খরচ করে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখা:

আপনি চাইলে গ্রাফিক্স ট্রেনিং সেন্টারে যোগদান করে সেখান থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে 5 হাজারথেকে 50 হাজার টাকা পর্যন্ত ফি দেওয়া প্রয়োজন হতে পারে।

ঘরে বসেই গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখা:

আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন ঘরে বসেই গুগল এবং ইউটিউব এর সাহায্য নিয়ে শিখতে পারবেন। বর্তমানে গুগল এবং ইউটিউব অসংখ্য গ্রাফিক্স ডিজাইনারের ফ্রি কোর্স রয়েছে আপনি চাইলে যেকোনো একটি কোর্সে অংশগ্রহণ করতে পারেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ শিখে মাসে কত আয় করা সম্ভব?

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে  বেকারত্বের হার বেড়েই চলেছে।

চারদিকে চাকরির জন্য শুধু হাহাকার। আপনি যদি এই মুহুর্তে চিন্তায় থাকেন যে গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ করে মাসে কত ইনকামকরা যাবে। অনলাইনে মার্কেটপ্লেসগুলোর মধ্যে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর মূল্য অনেক বেশি।আপনাকে অবশ্যই  ক্রিয়েটিভসৃজনশীল মন মানসিকতার মানুষ হতে হবে। তাহলে আপনি চাইলেই গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে ঘরে বসে প্রতি মাসে 50 হাজারথেকে 1.5 লক্ষ টাকা অনায়াসে আয় করতে পারবেন।

আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে চান তাহলে আপনাকে  কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করতে হবে।

এখানে প্রথমত আমি কয়েকটি ধাপ নিয়ে আলোচনা করেছি Then গ্রাফিক্স ডিজাইন করে আয় করার জনপ্রিয় উপায়গুলো নিয়েআলোচনা করেছি। চলুন তাহলে শুরু করা যাক।

প্রথমত, আপনার আঁকাআঁকি করার অভ্যাস থাকতে হবে।

কিন্তু এক্ষেত্রে অনেকেই মনে করে যে গ্রাফিক্স ডিজাইনার হওয়ার জন্য তাকে অনেক এক্সপার্ট লেভেলের কেউ হতে হবে। কিন্তুব্যাপারটা মোটেও সেরকম নয়। আপনি যখন আঁকাআঁকির প্র্যাকটিস করা শুরু করবেন তখন আপনি নিজেও একজন ভালোআর্টিস্টে পরিণত হবেন।

এজন্য আপনি বেশ কিছু সফটওয়্যার এর সাহায্য নিতে পারেন।

এডোবি ফটোশপ

এডোবি ইলাস্ট্রেটর

করেল ড্র

থ্রিডি ডিজাইন ম্যাক্স

এগুলো ছাড়াও আরও বেশ কিছু সফটওয়্যার রয়েছে যেগুলো অনলাইনে পাওয়া যায় এগুলো দিয়ে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইনেরকাজ খুব সহজেই করতে পারবেন।

দ্বিতীয়তঃ আপনার কালার সম্পর্কে একটা ভালো আইডিয়া থাকতে হবে। কোন কালারের সাথে কোন কালার  match হয় সেসম্পর্কে জানতে হবে।  কিছু প্রাকৃতিক কালার রয়েছে আবার কিছু রয়েছে warm কালার। ঠিক তেমনি RGB, CMYK, hue, saturation ইত্যাদি বিষয়গুলো জানতে হবে আপনাকে।

তৃতীয়তঃ আপনাকে কালার থিওরি সম্পর্কে idea থাকতে হবে। এই জন্য আপনি অনলাইনে বিভিন্ন বইয়ের সহায়তা নিতেপারেন। এছাড়াও আপনি  টিউটোরিয়াল দেখে দেখে কালার থিওরি শিখতে পারেন। যা একজন ডিজাইনার এর জন্য সবচেয়েভালো হয়।

চতুর্থত: আপনাকে এডভান্স লেভেলের টাইপোগ্রাফি শিখতে হবে। অর্থাৎ কোন কিছু ডিজাইন করার সময় ফন্টের সাইজ কেমনহবে কোন ব্যাকগ্রাউন্ডে কোন কালার ভালো মানাবে এই বিষয়গুলো আপনাকে ভালভাবে জানতে হবে।

পঞ্চমত: আপনাকে একটি ভালো মানের সফটওয়্যার এর কাজ শিখতে হবে। এই জন্য আপনি  এডোবি ইলাস্ট্রেটর বাছাই করতেপারেন। কারণ এতে অনেক এডভান্স লেভেলের টুলস রয়েছে।

এখন আমরা গ্রাফিক্স ডিজাইন করে আয় করার জনপ্রিয় উপায়গুলো নিয়ে আলোচনা করবো:

1. লোগো ডিজাইন: আমরা প্রত্যেকেই জানি যে, যেকোনো একটি কোম্পানির বা কোন প্রোডাক্টের পরিচয় বহন করে শুধুমাত্রএকটি লোগো। বুঝতেই পারছেন পৃথিবীতে লোগো ডিজাইনের গুরুত্ব কতটুকু। অনলাইনে লোগো ডিজাইনে অনেক কম্পিটিশনরয়েছে। আপনি যদি এই কমপিটিশনে অংশ নিতে চান তাহলে আপনাকে একজন দক্ষ লোগো ডিজাইনার হতে হবে। তাহলেআপনি  প্রতি মাসে 50 হাজার টাকা শুরু করে দুই লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

2.টিশার্টি ডিজাইন করে আয়: টি শার্ট ডিজাইন করতে হলে আপনাকে ভালো মানের ডিজাইনার হতে হবে। বর্তমানে এর চাহিদা  অনেক বেশি প্রতিনিয়ত বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস থেকে অনলাইনে এবং অফলাইনে লক্ষ লক্ষ টি শার্ট বিক্রয় হচ্ছে নতুন নতুনডিজাইনের জন্য।

3. ভিডিও টিউটোরিয়াল বিক্রি: আপনি যখন একসময় দক্ষ গ্রাফিক্স ডিজাইনার হয়ে যাবেন। তখন আপনি বিভিন্ন ভিডিওকোর্স তৈরি করে সেগুলো অনলাইনে বিক্রি করতে পারবেন। আপনি অনলাইনে লাইভ ক্লাস নিয়ে স্টুডেন্টদের কে শেখাতেপারবেন। এর জন্য জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হচ্ছে

SkillShare

4. ইউটিউবিং: আপনি চাইলে বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন করে সেগুলো ভিডিও করে স্ক্রিন রেকর্ড করে ইউটিউবে আপলোড করতেপারেন এতে আপনি প্রচুর পরিমাণে ইনকাম করতে পারবেন।

শেষকথা, বর্তমান সময়ে অনলাইন মার্কেটপ্লেসে গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের demand  অনেক বেশি। একজন দক্ষ গ্রাফিকডিজাইনার খুব সহজেই বড় বড় রিলেটেড কোম্পানিগুলোতে চাকরি পেয়ে যায় শুধুমাত্র তাদের দক্ষতা সৃজনশীলতার কারণে।তাই ,আপনিও আপনার দক্ষতা বাড়ান সফলতা আপনার হাতে এসেই ধরা দিবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button