বাংলা রচনা সমগ্র

ধূমপান না বিষপান / ধূমপানের অপকারিতা

ভূমিকা :

বিশ্বের প্রতিটি দেশেই ধূমপায়ীদের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বেড়ে চলেছে ধূমপানের কারণে অধূমপায়ীদের ক্ষতিগ্রস্ত হতে হচ্ছে ট্রেনেরকামরায় , বাসে বা লঞ্চে ধূমপায়ীদের বিড়ি , সিগারেটের ধোঁয়া পরিবেশকে দূষিত করে ধূমপান না করলেও অধূমপায়ী শিশু , বৃদ্ধ , নারীসহ অনেকেই তামাকের তীব্র বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়

ধূমপানের কুঅভ্যাস :

শৈশবকৈশোরকাল থেকেই ধূমপানের কুঅভ্যাস গড়ে ওঠে এটি কুঅভ্যাস , কারণ এতে কোনো উপকার নেই , বরং ক্ষতি হয় প্রথমতো শিশুরা খুব কৌতূহলী তারা সবকিছুরই স্বাদ গ্রহণ করতে চায় হাতের কাছে যা পায় তাই ইন্দ্রিয়ের সাহায্যে উপভোগকরতে চায় বড়দের দেখাদেখিও ছোটরা ধূমপান করতে শেখে নিছক খেয়ালের বশেও কেউ কেউ ধূমপান করে নেশায় পরিণতহলেও কুঅভ্যাস কেউ সহজে ত্যাগ করতে পারে না দুষ্ট বন্ধু ধূমপায়ীর সংসর্গে থাকলে ধূমপানের অভ্যাস গড়ে ওঠে ছোটরা খুবই অনুকরণপ্রিয়।তাই দর্শনীয় বিজ্ঞাপনের রঙিন নেশার ভাবভঙ্গি দেখে ছোটরা সিগারেট , পাইপ ইত্যাদি টানতে চায় সিনেমায় , টিভি পর্দায় , পত্রিকার পাতায় , রাস্তার বিজ্ঞাপন বোর্ডে তামাক কোম্পানিগুলো চমকপ্রদ ভাষায় ধূমপানের গুণ , ভাবভঙ্গি , ব্যক্তিত্বের মহিমা প্রচার করে বাড়িতে সিগারেট দিয়াশলাই সহজলভ্য হলে কেউ আর কাউকে ফেরাতে পারে না।

ধূমপানের ক্ষতিকর দিক :

নানা জাতের তামাক দিয়ে প্রস্তুত হয় সিগারেট , বিড়ি ইত্যাদি তামাকের সাথে সুগন্ধি রাসায়নিক দ্রব্যও মেশানো হয় তাইকেউ কেউ হুক্কা , পাইপ ব্যবহার করে ধূমপান করে থাকে যেভাবেই পান করা হোক না কেন ধূমপানের ফলে শরীরের ক্ষতি হবেই তামাকে থাকে নিকোটিন নামক তীব্র বিষ ধূমপানে সেই নিকোটিন বিষ গ্রহণ করা হয় প্রতিটি সিগারেটে বা বিড়িতে পাঁচথেকে ছয় মিনিট আয়ু কমে যায় ধূমপানের ফলে নানারূপ দুরারোগ্য ব্যাধি দেখা দেয় এর প্রভাবে নেশাগ্রস্ত ভাব সৃষ্টি হয় মস্তিষ্ক হয় প্রায় অচল অচলাবস্থার জন্য মস্তিষ্কে কোনো চিন্তাই সহজে চালিত হয় না বা কোনো প্রশ্নের সঠিক মীমাংসা আসেনা। তৎক্ষণাৎ যা আসে তা খুবই হঠকারী সিদ্ধান্ত দেহে , মনে , ব্যক্তিত্বেও সারা জীবনে একজন ধূমপায়ী মারাত্মকভাবেক্ষতিগ্রস্ত হয় অর্থহানির সঙ্গে ঘটে স্বাস্থ্যহানি্যার পরিণাম মৃত্যু

ধুমপানের অনিবার্য প্রতিক্রিয়া :

যেভাবেই ধূমপান করা হোক না কেন , এর অনিবার্য বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেবেই জাতীয় অধ্যাপক ডা . নূরুল ইসলাম বলেন, “ ধূমপানের কারণে আপাদমস্তক মানবদেহের প্রতিটি অঙ্গে কুফল দেখা দেয় ধূমপানে অনেক বিচিত্র ধরনের রে হতে পারে ধূমপানের ফলে ফুসফুসের ক্ষতি হয় সবচেয়ে বেশি ধূমপানের বিষক্রিয়া প্রথমে ফুসফুস পরে রক্তের সঙ্গে মিশে শরীরের নানাজায়গায় ছড়িয়ে পড়ে ফলে দেখা দেয় যক্ষ্মা , ব্রংকাইটিস , দন্তক্ষয় , ক্ষুধামান্দ্য , গ্যাস্ট্রিক আলসার , হৃদরোগ , মাথাঘোরা , এমনকি চোখের দৃষ্টি পর্যন্ত নষ্ট হয়ে যায় এবং ঠোট , মুখ , দাঁত ইত্যাদির মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে ধূমপানে তিনি আরোবলেন , “ মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের অন্যতম প্রধান কারণ ধূমপান।এ কুঅভ্যাস হৃদপিণ্ডে রক্ত সঞ্চালনেও বাধা সৃষ্টি করে থাকে

প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা :

ধূমপান যে বিষপান আর বিষপানের অর্থ যে মৃত্যু সে সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করা প্রয়োজন সমাজে ধূমপানের বিরুদ্ধেসচেতন প্রতিবাদ প্রতিরোধ গড়ে তোলা উচিত ইতোমধ্যে বাংলাদেশ সরকার প্রকাশ্যে ধূমপান নিষিদ্ধআইন পাস করেছেএবং এর আশু ফলও পাওয়া যাচ্ছে আমাদের দেশে মহিলারা ( ব্যতিক্রম বাদে ) ধূমপান করে না মা , বোন , স্ত্রী হিসেবেধূমপানের বিরুদ্ধে তারা যোগ্য ভূমিকা পালন করতে পারেন জাতীয় প্রচার মাধ্যমে ধূমপান বিরোধী প্রচার অব্যাহত রাখা , প্রকাশ্য বিজ্ঞাপন প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি এবং সিগারেটের গায়ে বিষপানের কথাটি লেখতে বাধ্য করা কর্তব্য ধূমপানমুক্তএলাকা গঠন ধূমপানহীন দিবস এবং সপ্তাহ পালন করা উচিত ধূমপানের বদভ্যাস ছাড়ানোর জন্য প্রতিষেধক আবিষ্কারকরাও জরুরি বড়রা ইচ্ছাশক্তি প্রতিজ্ঞাপূর্বক ধূমপান ত্যাগ করতে পারে নেশাগ্রস্ত ছোটদের কুঅভ্যাস ছাড়াবার ব্যবস্থাকরতে হবে

ধূমপান না করার উপকারিতা :

অধূমপায়ী ব্যক্তি দীর্ঘায়ু সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হয় তার হৃৎপিণ্ড কার্যকরভাবে চালু থাকে বলে হৃদরোগ আক্রান্ত হওয়ারসম্ভাবনা কম থাকে।সে ফুসফুসের ক্যান্সার থেকে মুক্ত থাকে।তার মনোবল সর্বদা সুদৃঢ় থাকে এবং অকালে জীবন ধ্বংসের ঝুঁকিথেকে মুক্ত থাকে

উপসংহার :

মানুষের অসাধ্য বলে কিছুই নেই নেশামুক্ত হবার পরিবেশ উৎসাহ সৃষ্টি হলে ধূমপান কমতে পারে এমনকি দূরীভূতও হতেপারে সুন্দর পৃথিবীতে সবাই জীবনকে ভালোবাসে ধূমপান আত্মহত্যার সামিল একথা বোঝতে পারলেই কেউ ধূমপানকরবে না এতে প্রয়োজন সচেতনতা বৃদ্ধি সামাজিক দায়িত্ববোধে এর জাগরণ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button